‘আরআরআর’, ‘কেজিএফ’-এর মতো ‘অর্থহীন’ ছবি দেখবেন না, শ্রোতাদের অনুরোধ করলেন জুবিন

নিজস্ব প্রতিবেদন:বর্তমানে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি বিভিন্ন চলচ্চিত্রে থেকেও বেশি পরিমাণে মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছে দক্ষিণের চলচ্চিত্রগুলি। সোশ্যাল মিডিয়ার দরুন আমরা এর প্রমাণ বারংবার পেয়েছি। তবে অনেকেই রয়েছেন যারা এই ব্যাপারটি মেনে নিতে একেবারেই রাজি নন। যে কোন জিনিসের ইতিবাচক এবং নেতিবাচক দুটি দিক থাকে। সাউথ ইন্ডাস্ট্রির চলচ্চিত্রগুলির ক্ষেত্রে নেতিবাচক দিক যদিও খুব কম।

তবে এমতাবস্থাতেই একেবারে উল্টো সুর শোনালেন গায়ক জুবিন গর্গ।জুবিন বলেন, হিন্দিতে ডাব করা ‘অর্থহীন’ দক্ষিণী ছবি না দেখে অসমিয়া ছবির প্রচার করা উচিত। এখানেই থেমে যাননি তিনি। তুলে আনেন ‘আরআরআর’, ‘কেজিএফ’ -এর মতো ছবিগুলির প্রসঙ্গ তুলে এনে সকলের উদ্দেশ্যে বলেন যে এই চলচ্চিত্রগুলির কোন রকমের মানে নেই। অতএব অর্থহীন এই চলচ্চিত্রগুলির না দেখে মানুষের ভালো চলচ্চিত্রে মনোনিবেশ করা উচিত যেগুলির প্রকৃত মূল্য রয়েছে।

প্রসঙ্গত সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত জনপ্রিয় চলচ্চিত্র এসএস রাজামৌলির ‘আরআরআর’-এ এক হাতে একটি আস্ত বাইক থামিয়ে দিতে দেখা গিয়েছে জুনিয়র এনটিআরকে। শুধু তাই নয়, এক হাতে সেই বাইক অবলীলায় তুলেও নেন তিনি। এই দৃশ্যটি প্রসঙ্গে কটাক্ষ করে গায়ক জুবিন জানিয়েছেন,” কখনো একটি লাথিতে বাইক ছুড়ে ফেলা সম্ভব?না।

এ সব কিছুই সম্ভব নয়। এগুলো ভুলভাল জিনিস”। এর পরেই সকলের উদ্দেশ্যে নিজের মতামত এর কথা জানিয়ে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন জুবিন গর্গ। তার কথায়,”আপনাদের এই ডাব করা ছবিগুলি দেখা বন্ধ করে উচিত। অসমিয়া ছবি দেখা উচিত। আপনারা তো বোকা নন যে ওই সব দেখবেন”।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য মাত্র কয়েকদিন আগেই মুক্তি পেয়েছে কেজিএফ চ্যাপটার টু। এর মধ্যেই এটি প্রায় 800 কোটি টাকার কাছাকাছি ব্যবসা করে ফেলেছে।২৪ মার্চ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছিল পরিচালক এস এস রাজামৌলির ‘আরআরআর’। মুক্তির মাত্র দিন দুয়েকের মধ্যেই ঘরে তুলেছিল ১০০ কোটি। সারা বিশ্ব জুড়ে হাজার কোটিরও বেশি ব্যবসা করে ফেলেছে রাম চরণ এবং জুনিয়র এনটিআর অভিনীত এই ছবি।

কিন্তু দক্ষিণী চলচ্চিত্রের এই রমরমা বাজার এর মাঝেই জুবিন গর্গের বক্তব্য যে বিতর্ক তুলে আনবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয় নিয়ে কাউকে কোন রকম এর পাল্টা উত্তর দিতে দেখা যায়নি। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই জুবিনের এই বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন। দক্ষিণী চলচ্চিত্রের ভক্ত সংখ্যা কম নয়। বরং দিন প্রতিদিন এর ভক্ত সংখ্যা বেড়েই চলেছে। স্বাভাবিকভাবেই এই পরিপ্রেক্ষিতে জুবিনের বক্তব্য অনেক মানুষ মেনে নিতে পারেননি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button