চেয়ারের বাংলা মানে কী? ৯৯% মানুষ ভুল জানেন

নিজস্ব প্রতিবেদন : ‘চেয়ার’ (Chair) নিয়মিত ব্যবহৃত আসবাবপত্রের মধ্যে এক অন্যতম আসবাব। প্রায় সারা বিশ্ব জুড়েই প্রতিটি বাড়িতেই চেয়ার রয়েছে। এছাড়াও, অফিস, দোকান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য আরো অনেক জায়গাতেই নিয়মিত চেয়ার ব্যবহার করা হয়। প্রায় সব স্থানেই বসে থাকার জন্য চেয়ার‌ই ব্যবহৃত হয়। ৩১০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ইজিপ্টে প্রথম চেয়ারের প্রচলন হয়। সেই সময় কাঠ দিয়ে বানানো চেয়ার কাপড় অথবা চামড়া দিয়ে মোড়ানো থাকতো। এরপরে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সারা পৃথিবীতেই চেয়ার জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

বর্তমান সময়ে সাধারণত কাঠ অথবা প্লাস্টিক দিয়ে চেয়ার তৈরি করা হয়। তবে প্রাচীন যুগে পাথর ও অন্যান্য ধাতু দিয়েও নানারকম কারুকার্য করা ভারী চেয়ার প্রস্তুত করা হত। ইংরেজি শব্দ ‘চেয়ার’ (Chair)-এর উৎপত্তি হয়েছে লাতিন শব্দ ‘Cathedra’ থেকে। লাতিন ভাষায় এই শব্দের অর্থ হল ওঠা-বসা। আবার অন্য তথ্যসূত্র অনুযায়ী, ফ্রেঞ্চ শব্দ ‘Chaera’ পরিবর্তিত হয়ে ‘Chair’ হয়েছে। তবে বেশিরভাগ মানুষই চেয়ারের ব্যবহার করে থাকলেও, অনেকেই এর বাংলা প্রতিশব্দ জানেন না!

১. ‘চেয়ার’কে বাংলায় কী বলা হয়?
উঃ ‘কেদারা।’

২. পৃথিবীর প্রথম সরলতম চেয়ার কারা আবিষ্কার করেছিল?
উঃ প্রাচীন মিশরীয়রা (আনুমানিক খ্রিঃ পূঃ ২৮০০)।

৩. পৃথিবীর বৃহত্তম চেয়ার (World’s Largest Chair)কোনটি?
উঃ গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড (Guineas Book Of World Record) অনুযায়ী, পৃথিবীর বৃহত্তম চেয়ারটি উইহাগ্ (Wiehag)-এর নির্মিত। এটি লিনজ-এর কাছে সেন্ট ফ্লোরিয়ান (St. Florian near Linz)-এ অবস্থিত। এটির উচ্চতা প্রায় ৩০ মিটার।

৪. পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম চেয়ার (World’s Smallest Chair) কোনটি ?
উঃ ‘স্টিপ্যাক জেন এক্স’ (Stipack Zen X) হল বিশ্বের ক্ষুদ্রতম চেয়ার। এটি প্রায় ১৩৬ কেজি পর্যন্ত ওজন সইতে পারে।

Leave a Comment