কিভাবে সিনেমায় চান্স পেলো সেই ছোট্ট শিশু অভিনেতা অরিত্র দত্ত বণিক, দেখে নিন ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- ২০০৩ সালে তিথির অতিথি নামক ধারাবাহিক তার অভিনয় জগতে পদার্পণ ঘটে। তারপর মিঠুন চক্রবর্তীর পরিচালনায় ডান্স বাংলা ডান্স জুনিয়ার এ তাকে খুদে সঞ্চালক হিসেবে দেখা যায়। তারপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি । লক্ষ লক্ষ দর্শকের মন জিতে নিয়েছেন রাতারাতি শুধুমাত্র অভিনয় দক্ষতা দিয়ে । তারপরে তার বড় পর্দার আগমন ঘটে। দেব জিৎ এবং সোহমের সাথে একাধিক বাংলা ছবিতে তিনি অভিনয় করেন। এবং ধীরে ধীরে বাড়িয়ে তোলেন তাঁর জনপ্রিয়তা। দেবের ‘পরান যায় জ্বলিয়া রে’, চ্যালেঞ্জ, চিরোদিনি তুমি যে আমার, নামক বিভিন্ন জনপ্রিয় ছবিতে অভিনয় করতে দেখা যায়।

ছোটবেলা থেকে অরিত্র অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। এবং তার পাশাপাশি তাঁর কথা বলার স্টাইল বা ধরণ অন্যান্য ছেলে থেকে একটু আলাদা ছিল এবং সেখান থেকে তার বাবা মায়েরা বুঝতে পারে যে তার মধ্যে অভিনয় দক্ষতা রয়েছে তার মাসির এক সহকর্মী অভিনয় জগতের সাথে যুক্ত ছিলেন । তাই মাসির তৎপরতা যে তিনি ২০০৩ সালে প্রথম অডিশন দিতে চান এবং প্রথম অডিশন তিনি সিলেক্ট হয়ে যান । তারপরে জীবনে তাকে ফিরে তাকাতে হয়নি । এই মুহূর্তে যাদবপুর ইউনিভার্সিটি তে পড়াশোনা করছেন তিনি । অংকের প্রতি ভয় থাকার জন্য উচ্চ মাধ্যমিক আর্টস নিয়ে পড়াশোনা করতে হয়েছে তাকে ।

কিন্তু সম্প্রতি অরিত্রকে আর বড় পর্দায় দেখা যাচ্ছে না । এর কারণ কি? এর কারণ হলো অরিত্র নিজের মা-বাবাকে দেওয়া কথা অনুসারে ২০১৩ সালের পর থেকে একটা লম্বা ব্রেক নিয়েছেন । ২০১৬ সালে তিনি পাস করেন উচ্চমাধ্যমিক। যথেষ্ট ভাল রেজাল্ট করে । তারপরে আর অভিনেতা হিসেবে নয় বরং ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে ভিডিও এডিটিং এবং কালার গ্রেডিং এর কাজ করছেন এই অভিনেতা । তাহলে কি আগামী দিনে বাংলার মানুষ তাকে দেখতে চলেছে একজন প্রযোজক হিসেবে ? প্রশ্ন অনুগামী মহলের একাংশের ।

ডান্স বাংলা ডান্সের জনপ্রিয়তার জন্য সম্পূর্ণ ক্রেডিট তিনি মিঠুন চক্রবর্তীকে দিয়েছেন । তার পাশাপাশি দেবের সাথে তার অত্যন্ত ভালো সম্পর্ক বলা যেতে পারে । একজন নিজের দাদা ও ভাইয়ের মতন । তবে অরিত্র দত্ত বণিক এখন বলিউডে পা রেখেছে এমনটা শোনা যাচ্ছে বলিউডের একটি ওয়েব সিরিজে। আগামী দিনে কাজ করতে চলেছেন তিনি এমনটা যারা যাচ্ছে গোপন সূত্র অনুসারে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button