অনুষ্ঠান বাড়ির মতো বাড়িতে সহজ পদ্ধতিতে বানিয়ে ফেলুন শুক্তো, যার স্বাদ হয় দুর্দান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাঙালি বাড়ির যে কোন অনুষ্ঠানেই পাতে কিন্তু প্রথমে শুক্তো পরিবেশন করা হয়ে থাকে।মঙ্গলকাব্য এবং বৈষ্ণবসাহিত্যে এই রান্নাটির উল্লেখ থাকলেও তখন কিন্তু শুক্তো বলতে শুধুমাত্র তিতোকেই বোঝানো হত। এই সাতরকম সব্জির তিক্ত ব্যাঞ্জন তখন ছিল না। তখন শুক্তো রান্না করা হত- বেগুন, কুমড়ো, কাঁচকলা, মোচা আর গুঁড়ো বা বাটা মশলা দিয়ে। তবে সময়ের সাথে সাথে রান্নায় এসেছে অনেক পরিবর্তন।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আলোচনা করে নিতে চলেছি কি কি মসলা দিয়ে আপনারা একেবারে অনুষ্ঠান বাড়ির মতন করে শুক্তো তৈরি করে নিতে পারেন।। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

  • শুক্তো তৈরি করার সঠিক পদ্ধতি:

১) শুক্তো তৈরি করার জন্য একটি কড়াই গরম করে প্রথমে এক টেবিল চামচ পাঁচফোড়ন আপনাদের নিয়ে নিতে হবে। যদিও পাঁচফোড়নের মধ্যেই জিরে থাকে তবুও আপনারা কিন্তু কিছুটা অতিরিক্ত জিরে যোগ করে দিতে ভুলবেন না। এবার এই দুটি উপকরণকে ড্রাই রোস্ট করে আপনাদের একটি পাউডার বানিয়ে নিতে হবে। এই পাউডারটিকে ঢাকা দিয়ে আরো একটি জায়গায় সরিয়ে রাখুন। তারপর কড়াইতে তিন টেবিল চামচ পরিমাণ সরষের তেল আপনাদের গরম করে নিতে হবে।

তেল গরম হয়ে গেলে প্রথমে এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে একমুঠো বড়ি। চাইলে আপনারা বাজার থেকে কিনেও নিয়ে আসতে পারেন আবার বাড়িতেও এই বড়ি তৈরি করে নিতে পারেন। লাল লাল করে ভেজে এই বড়িগুলো আপনাদের তুলে নিতে হবে। তারপর বড়ি ভেজে নেওয়ার পরে দুটো উচ্ছে আপনাকে একেবারে লম্বা লম্বা করে কেটে ওই তেলের মধ্যে ভেজে নিতে হবে। ভাজার আগে ভালো করে কেটে লবন আর হলুদ মাখিয়ে নিতে ভুলবেন না।

২) মিডিয়াম ফ্লেমে কিছুক্ষণ সময়ের মধ্যে উঠছে একেবারে লালচে করে ভাজা হয়ে গেলে এটাকে কড়াই থেকে তুলে নিন। এভাবে ভেজে নিলে তেতোভাব অনেকটাই দূর হয়ে যাবে। উচ্ছে ভাজা হয়ে গেলে আপনাদের এই তেলের মধ্যেই দিয়ে দিতে হবে লম্বা করে কেটে রাখা বেগুন। বেগুন ভাজা হয়ে গেলে উচ্ছের মতো এটা কেউ তুলে রেখে দিতে হবে। তারপর বাকি তেল টুকুর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে একটা শুকনো লঙ্কা, একটা তেজপাতা এবং হাফ চা চামচ পাঁচফোড়ন।

পাঁচফোড়ন থেকে সুন্দর গন্ধ বেরোলে কড়াইতে আপনারা আলু, বেগুন, বরবটি, গাজর প্রভৃতি বাদবাকি সবজিগুলোকে যোগ করে দিন। পাঁচফোড়ন সহযোগে সবজিগুলোকে দুই থেকে তিন মিনিট পর্যন্ত রান্না করার পরে আপনাদের পরিমাণ মতো লবণ আর খুবই সামান্য হলুদ গুঁড়ো দিয়ে দিতে হবে। তারপর ঢাকা দিয়ে কিছুক্ষণ সময় পর্যন্ত এটাকে রান্না করে নিন।

৩) এরপর কিছুক্ষণ ঢাকা দিয়ে অবস্থায় রেখে আপনাদের এর মধ্যে যোগ করে দিতে হবে ১ চা চামচ পরিমাণ রাঁধুনি। তারপর ঢাকনা খুলে আপনাদের কড়াইতে কিছুক্ষণ পর মিশিয়ে দিতে হবে রাঁধুনি বাটা এবং এক চা চামচ পরিমাণ আদা বাটা। সবজিটা কিছুক্ষণ রান্না হয়ে যাওয়ার পরেই কিন্তু আপনাদের আদা বাটা যোগ করতে হবে। রাধুনী ছাড়া কিন্তু এই রেসিপিটি একেবারেই অসম্পূর্ণ। তাই এটার ব্যবহার করে আপনাদের শুক্তো ভালো গ্রেভি তৈরি করে নিতে হবে। এরপর কিছুটা পরিমাণ দুধ আর জল কড়াইতে যোগ করে দিন। যদি খুব বেশি পাতলা করতে না চান তাহলে অবশ্যই আপনারা পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারেন।

৪) সমস্ত উপকরণগুলি একসঙ্গে মিশিয়ে নেওয়ার পরে আপনাদের কিছুটা পরিমাণ চিনি এতে যোগ করে দিতে হবে। শুক্তোর রেসিপির মধ্যে চিনি যোগ করলে কিন্তু খেতে একেবারে অসাধারণ স্বাদের হয়ে থাকে। এরপর তিন থেকে চার মিনিট সময় পর্যন্ত আপনাদের খুব ভালো করে রান্নাটি কে ফুটতে দিতে হবে। ভালো করে রান্নাটি ফুটতে শুরু করলে ভেজে রাখা বড়ি, বেগুন আর উচ্ছে ভাজা এর মধ্যে দিয়ে দিন।

তারপর হালকা হাতে আপনাদের সমস্ত কিছুকে একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর কিছুক্ষণ পর্যন্ত গ্রেভি ফুটে ওঠা অবধি আপনারা অপেক্ষা করতে থাকুন। হালকা ঘনত্ব তৈরি হলেই আগে থেকে তৈরি করে রাখা ভাজা মসলা এবং গাওয়া ঘি এর মধ্যে মিশিয়ে নিতে হবে। সবশেষে আরো কিছুক্ষণ গ্যাসের ফ্লেম বন্ধ করে আপনারা দুই থেকে তিন মিনিট সময় পর্যন্ত রেখে দিলেই তৈরি হয়ে যাবে শুক্তো। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই লাইক ,কমেন্ট আর শেয়ার করে দিতে ভুলবেন না।

Back to top button