বাড়িতে সহজ পদ্ধতিতে বানিয়ে ফেলুন লাচ্ছা পেঁয়াজ পরোটা, রইলো পদ্ধতি

নিজস্ব প্রতিবেদন: সকালের জলখাবার থেকে শুরু করে বিকেলের স্ন্যাক্স সবকিছুতেই কিন্তু একটু নতুনত্ব না হলে অনেকের চলে না। বিশেষ করে বাচ্চারা কিন্তু একেবারেই প্রতিদিন একঘেয়ে খাবার খেতে চায় না। তাই তাদের মুখের স্বাদে পরিবর্তন আনার জন্য মাঝেসাঝে হলেও কিন্তু একটু নিত্যনতুন রেসিপি ট্রাই করা অতি আবশ্যক। কিন্তু অনেকেই হয়তো খুঁজে পান না ঠিক কি ধরনের খাবার তৈরি করলে তা সকলের জন্য উপযুক্ত হবে। কারণ বাড়ির প্রত্যেক সদস্যের জন্য তো আলাদা করে খাবার বানানো সম্ভব নয়।

দৈনন্দিন ব্যস্ততম জীবনে কখনোই এভাবে প্রত্যেক জনের জন্য আলাদা করে সময় দেওয়া সম্ভব নয়। তাই আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সাথে এমন একটি রেসিপি শেয়ার করে নিতে চলেছি যা বাচ্চা থেকে বড় সকলেই খুব পছন্দ করবে এবং একবার বানিয়ে খাওয়ালে কিন্তু বারবার খেতে চাইবে। এই রেসিপিটি হল লাচ্ছা পেঁয়াজ পরোটার রেসিপি। যারা রুটি বা পরোটা খেতে অভ্যস্ত তারা কিন্তু এই ইউনিক রেসিপিটি অবশ্যই একবার হলেও বাড়িতে ট্রাই করে দেখতে পারেন। আসুন এটি তৈরি করার স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতি জেনে নেওয়া যাক।

  • লাচ্ছা পেঁয়াজ পরোটা তৈরি করার পদ্ধতি:

১) একটি বড় পাত্রের মধ্যে আপনাদের হাফ কাপ পরিমাণ আটা নিয়ে নিতে হবে। সাথে হাফ কাপ পরিমাণ ময়দা নিয়ে নিন। আপনারা চাইলে পুরোটা আটা অথবা পুরোটা ময়দা দিয়েও কিন্তু তৈরি করতে পারেন। এবার এই মিশ্রণের মধ্যে স্বাদমতো লবণ আর এক চামচ ঘি যোগ করে দিন। এবার ঘি অথবা তেল ব্যবহার করে আটা ময়দার সাথে ভালো করে ধীরে ধীরে ময়ানটাকে মেখে নিতে হবে। এবারে এই মিশ্রণের মধ্যে হাফ কাপ পরিমাণ জল যোগ করে দিন। এবারে আপনাদের ভালো করে এই মিশ্রণটিকে কিন্তু মেখে নিতে হবে। প্রয়োজনে হাতে একটু ঘি লাগিয়ে মাখতে শুরু করুন।

২)ডো নরম হয়ে গেলে আপনারা বুঝবেন মিশ্রণটি কিন্তু মাখা সম্পূর্ণ হয়েছে। এবার এটাকে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের জন্য আপনাদের ঢাকা দিয়ে রেখে দিতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত এটা সেট হচ্ছে ততক্ষণ আমাদের ভেতরের পুর তৈরি করে নিতে হবে। এর জন্য আপনাদের নিয়ে নিতে হবে দুটি মাঝারি সাইজের পেঁয়াজ।

পেঁয়াজ আপনাদের খুব পাতলা করে কেটে নিতে হবে। এবারে আরও দুটো কাঁচা লঙ্কা নিয়ে মিহি করে কুচো করে নিতে হবে। এবার একটি মিক্সিং বোলের মধ্যে কুচনো পেঁয়াজ আর লঙ্কা নিয়ে নিন। পেঁয়াজ আর লঙ্কা ছাড়া এর মধ্যে আপনাদের কিছু মসলা মিশিয়ে দিতে হবে।

মসলা হিসেবে দিতে হবে কিছুটা পরিমাণ লাল লঙ্কার গুঁড়ো, সামান্য গোল মরিচের গুঁড়ো, হাফ চামচ ধনে গুঁড়ো, হাফ চামচ ভাজা জিরের গুঁড়ো,দেড় চামচ মত চাট মসলা। আপনারা চাইলে চাট মসলার পরিবর্তে কিন্তু আমচুর পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। সবশেষে আপনাদের কিছুটা পরিমাণ গরম মসলার গুঁড়ো আর কিছুটা পরিমাণ জোয়ান হাত দিয়ে ঘষে এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে।। গরম মসলার গুঁড়ো দিলে একটা সুন্দর ফ্লেভার তৈরি হবে আর জোয়ান ব্যবহার করলে অ্যাসিডিটির ভয় থাকবে না। সবশেষে কিছুটা পরিমাণ কসুরি মেথি ড্রাই রোস্ট করে যোগ করেদিন এবং দিয়ে দিন ধনেপাতা কুচি।

৩) উপরের সমস্ত উপকরণগুলিকে এবার আপনাদের হালকা হাতে মিশিয়ে নিতে হবে। এই সময় কিন্তু ভুল করেও লবণ ব্যবহার করবেন না তাহলে কিন্তু জল ছাড়তে শুরু করবে। যে সমস্ত মসলা দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে যদি কোন মসলা আপনাদের পছন্দ না থাকে তাহলে সেটা দেওয়ার প্রয়োজন নেই। এরপর ১০ থেকে ১৫ মিনিট সময় পরে আপনাদের ডো খুলে নিতে হবে ঢাকনা থেকে। এখান থেকে আপনাদের তিনটি সমান আকারের লেচি তৈরি করে নিতে হবে। লেচিগুলো কিন্তু সাধারণ রুটির লেচি থেকে একটি বড় সাইজের তৈরি করে নিতে হবে। এবারে তার উপরে একটু তেল ব্রাশ করে দিতে হবে।

৪) এবার চারদিকে ময়দা ছড়িয়ে নিয়ে যেভাবে আমরা রুটি বেলে নিই ঠিক সেভাবেই এই লেচি গুলিকে বেলে নিতে হবে। তবে একটু বড় সাইজের রুটি তৈরি করতে হবে। এবার রুটির উপরে আপনাদের ঘি ব্রাশ করে নিতে হবে। উপর থেকে অল্প একটু ময়দা ছড়িয়ে নিয়ে যে পেঁয়াজের পুর আপনারা তৈরি করে রেখেছিলেন সেটাকে দিয়ে দিন।। অল্প একটু পুর দিয়ে আপনাদের রুটির উপরে ভালো করে ছড়িয়ে দিতে হবে। এরপর সামান্য লবণ দিয়ে এর উপরে হাত দিয়ে ছড়িয়ে ফেলুন।

৫) সবশেষে আপনাদের রুটি গুলিকে রোল করে নিতে হবে। তারপর এটাকে উল্টো দিক করে ফোল্ড করে নিন। দুহাতের তালুর সাহায্যে একটু চ্যাপ্টা চ্যাপ্টা করে নিয়ে আবারো ময়দা ছড়িয়ে হাত দিয়ে একটু মাখিয়ে নিয়ে রুটির মতন করে বেলে নিতে হবে। তবে এই ক্ষেত্রে আপনারা একেবারেই বেলন ব্যবহার করবেন না। তাহলে পুর বেরিয়ে যেতে পারে। বরং তার জায়গায় ময়দা ছড়িয়ে ছড়িয়ে হাত দিয়েই এই লেচি চ্যাপ্টা করতে থাকুন। খুব বেশি পাতলা করার দরকার নেই মোটা অবস্থাতেই এবার এটাকে ভেজে নিতে হবে।

তবে তার জন্য কিন্তু আপনাকে এটা তেলের মধ্যে দেওয়ার প্রয়োজন নেই।তাওয়া গরম করে কোনরকম তেল ব্যবহার না করে এটাকে একটু সেকে নিতে হবে। প্রয়োজনে আপনারা সেকে নেওয়ার সময় একটু ঘি ব্রাশ করে দিন। কিছুক্ষণের মধ্যেই উলটপালট করে দেখবেন খুব সুন্দর রং ধরে গিয়েছে। ব্যাস তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে আপনাদের লাচ্ছা পেয়াজ পরোটা। অল্প একটু টক দই আর আচারের সাহায্যে আপনারা সহজেই জলখাবারে এই রেসিপিটি পরিবেশন করতে পারেন। কমেন্ট বক্সে অবশ্যই আপনাদের রান্নার অভিজ্ঞতা শেয়ার করে নেওয়ার অনুরোধ রইলো।

Back to top button