বেটে নেওয়ার ঝামেলা ছাড়াই খুব সহজ এই পদ্ধতিতে বানান সুস্বাদু টমেটো বেগুন লটে শুঁটকি ভর্তা, খাবেন পুরো চেটেপুটে

নিজস্ব প্রতিবেদন: দুপুরের লাঞ্চে হোক বা রাতের ডিনার আমাদের কিন্তু প্রতিনিয়ত বাড়ির সদস্যদের মন জয় করার উদ্দেশ্যে নিত্যনতুন রেসিপি ট্রাই করে যেতে হয়। তবে সব সময় তো রেস্টুরেন্টের মতন নানান ধরনের নামিদামি রেসিপি তৈরি করা সম্ভব নয়। তাই আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি একেবারে সাধারন ভাবে তৈরি টমেটো বেগুন লইট্টা শুটকি মাছ দিয়ে ভর্তার রেসিপি।

অনেকেই কিন্তু লইট্টা বা শুটকি মাছকে মাছ হিসেবে গণ্য করেন না। বিশেষ করে এগুলি রান্না করার সময়ে প্রচুর পরিমাণে গন্ধ বের হওয়ার জন্য মানুষের সমস্যার সৃষ্টি হয়। তবে আপনাদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে রাখি লইট্টা মাছ আমাদের সবার কাছে খুবই প্রিয় একটি মাছ। কারণ বাজারে সহজলভ্যতা ও চাহিদার দিক দিয়ে এর জনপ্রিয়তা অনেক শীর্ষে। অল্প কাঁটাযুক্ত এই মাছ ছোট থেকে বড় সবার প্রিয়। সুতরাং লইট্টা আর শুটকি মাছ দিয়ে তৈরি আজকের এই বিশেষ রেসিপিটি শেয়ার করা যেতেই পারে।

টমেটো আর বেগুন দিয়ে লইট্টা শুটকি ভর্তা:

১) এই রেসিপিটি তৈরি করার জন্য আপনাদের প্রথমেই ১০০ গ্রাম লইট্টা শুটকি নিয়ে লম্বা করে কেটে ভেজে নিতে হবে। খুব ভালো করে ভাজা হয়ে গেলে গ্যাসের আঁচ বন্ধ করে দিয়ে কিছুক্ষণ জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এরকম করলে শুটকি মাছ অনেকটাই নরম হয়ে যাবে এবং এর ভেতরকার কাটা বের করে নিতে সুবিধা হবে।

এরপর একটি বড় কড়াই এর মধ্যে আপনাদের টমেটো আর বেগুন সেদ্ধ করার জন্য বসিয়ে দিতে হবে। টমেটো আর বেগুনগুলোকে মাঝ বরাবর কেটে নিলেই কিন্তু কাজ হয়ে যাবে। সম্পূর্ণ জল টেনে টমেটো আর বেগুন কিছুক্ষণের মধ্যেই কিন্তু সেদ্ধ হয়ে যাবে। এবার এটাকে আলাদা পাত্রের মধ্যে তুলে রাখুন।

২) দ্বিতীয় ধাপে কড়াইয়ের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ সয়াবিন তেল দিয়ে দিতে হবে। এবার এই তেলের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ পেঁয়াজ কুচি, কাঁচা লঙ্কা কুচি আর রসুন কুচি দিয়ে দিতে হবে। যে যেরকম ঝাল খেতে পছন্দ করেন ঠিক ততটাই এখানে কাঁচালঙ্কা ব্যবহার করবেন। তবে যেহেতু এটা শুটকি ভর্তা তাই ঝাল যতটা বেশি দেবেন ততটাই কিন্তু ভালো লাগবে।।

এই সময় কাটা ফেলে দিয়ে শুঁটকি মাছগুলোকে আপনাদের একটু থেঁতো করে নিতে হবে। তারপর এটাকে কড়াই এর মধ্যে পেঁয়াজের মিশ্রণে দিয়ে দিতে হবে। এরপর সমস্ত উপকরণ গুলিকে একসঙ্গে এমন ভাবে ভেজে নিন যাতে শুটকি মাছের রং পরিবর্তন হয়ে যায়। দেখবেন শুটকি মাছের রঙ কিছুটা সোনালী হয়ে গিয়েছে। এই পর্যায়ে আপনাদের সমস্ত গুঁড়ো মসলা যোগ করে দিতে হবে।

৩) এরপর গুঁড়ো মসলা হিসেবে আপনাদের এই রান্নাতে দিতে হবে শুকনো লঙ্কার গুঁড়ো এক চা চামচ, হলুদ গুঁড়ো হাফ চা চামচ, হাফ চা চামচ ধনে গুঁড়ো এবং স্বাদমতো লবণ। আপনারা চেষ্টা করবেন ঝালের পরিমাণ একটু বেশি রাখার। মসলাগুলিকে মাছের সাথে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে বেগুন আর টমেটো যে সেদ্ধ করে রেখেছিলেন সেটা কেও এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে।

যদি আপনারা স্টিলের করাইতে এই ভর্তা তৈরি করে থাকেন তাহলে কিন্তু যখন দেখবেন কিছুটা ভালো সুগন্ধ বেরোচ্ছে বা তলা ধরে যাচ্ছে তখন কিন্তু গ্যাসের আঁচ অবশ্যই কমিয়ে দিতে হবে। রান্না করার সময় এই পর্যায়ে যদি আপনাদের প্রয়োজন মনে হয় সেক্ষেত্রে আরো কিছুটা পরিমাণ লঙ্কার গুঁড়ো আর লবণ আপনারা যোগ করে দিতে পারেন।।

যতক্ষণ পর্যন্ত না মিশ্রণটি আরও বেশি রকমের ঘন হয়ে আসছে ততক্ষণ এটাকে কড়াইতে নাড়াচাড়া করতে থাকুন। মোটামুটি ছয় থেকে সাত মিনিট এরকম করলেই কিন্তু তৈরি হয়ে যাবে টমেটো বেগুন দিয়ে লইট্টা শুটকি ভর্তা রেসিপি। এটি এমন একটি রান্না যার সাহায্যে খুব সহজেই গোটা এক থালা গরম ভাত আপনারা অন্য কোন পদ ছাড়াই খেয়ে নিতে পারবেন। রেসিপিটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই লাইক আর শেয়ার করার অনুরোধ রইলো।

Leave a Comment