“আমি ওর সঙ্গে আবারও কাজ করতে চাই”, বিচ্ছেদের পরেও শ্রাবন্তীকে নিয়ে মনের সুপ্ত ইচ্ছা ফাঁস প্রথম স্বামী রাজীবের

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজিব কুমার বিশ্বাস! টলিউড ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে পরিচিত প্রায় অনেক মানুষই কিন্তু এই ব্যক্তিকে খুব ভালোভাবে চেনেন। এক সময়ে তাঁর ঝুলিতে একের পর এক হিট ছবি— ‘দু’জনে’, ‘পাগলু’, ‘অমানুষ’, ‘অমানুষ ২’। ২০১৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল তাঁর পরিচালিত শেষ ছবি। তারপর আর খুব একটা ইন্ডাস্ট্রিতে দেখা যায়নি তাকে। পরিচালকের পাশাপাশি তার আরও একটি পরিচয় রয়েছে।

তিনি হলেন বর্তমান সময়ের টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম স্বামী। যদিও দীর্ঘ সময় আগেই এই দুই সেলেব্রেটির মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছে। তবে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তিনি বুঝিয়ে দিলেন এখনো কিন্তু অনেক বিষয়ের জন্যই শ্রাবন্তীর উপর নির্ভর করে থাকেন রাজীব। এমনকি তার সেই সাক্ষাৎকার থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় অভিনেত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পরেও পরিচালকের রয়েছে সুসম্পর্ক।

আসুন আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে জেনে নেওয়া যাক রাজীব কুমার বিশ্বাসের কিছু অজানা কথা। সম্প্রতি এক জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন রাজিব। সেখানেই নিজের জীবনের নানান কথা এবং পরবর্তী প্রজেক্ট নিয়ে ভাবনা শেয়ার করেন রাজীব কুমার বিশ্বাস।

সম্প্রতি বড়পর্দায় কাজ ছেড়ে ছোট পর্দায় পরিচালনা শুরু করতে চলেছেন রাজীব। এর কারণ জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি উত্তর দেন, “ছোট পর্দা দিয়েই তো এই ইন্ডাস্ট্রিতে আমার হাতেখড়ি। ‘দু’জনে’ তৈরির আগে আমি টেলিভিশনেই পরিচালনার কাজ করতাম। অবশ্য মাঝে প্রচুর ছবি করেছি। যেমন ‘পাগলু’, ‘অমানুষ’-সহ কত কত ছবি। এখন করোনার পরিস্থিতির পর থেকে একটু তো সমস্যা আছেই।

আমরা সিঙ্গল স্ক্রিনের দর্শকের জন্য প্রধানত ছবি তৈরি করতাম। এখন সেই ছবির বাজারটাই কম। দেব, জিৎ, অঙ্কুশরাও তো এখন প্রযোজক। ওরা এখন অন্য ধরনের কাজের দিকে ঝুঁকেছে”। এরপর দেব অথবা জিতের প্রযোজনা সংস্থা থেকে তাকে কাজের জন্য ডাকা হয়েছে কিনা জিজ্ঞেস করতে রাজিব বলেন,“হ্যাঁ, ওদের সঙ্গে কথা হয়। কিন্তু এই মুহূর্তে ওরা অন্য রকম ছবি তৈরি করছে।

বিশেষত দেব যেমন ছবি বানাচ্ছে, সেই ধরনের ছবি তৈরিতে আমি পারদর্শী নয় বলেই আমার ধারণা। তবে এখনও আমার মনে হয়, ইন্ডাস্ট্রিকে বাঁচাতে গেলে মশলাদার বাণিজ্যিক ছবি তৈরি করতে হবে। ফাইট মাস্টার কিংবা নাচের লোকজনদের বেশ ক্ষতি হচ্ছে”। এদিন ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে শ্রাবন্তীর সঙ্গেও বিচ্ছেদ নিয়ে তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল।

শ্রাবন্তীর সঙ্গে বিচ্ছেদ তার কেরিয়ারে কতটা প্রভাব ফেলেছে এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে রাজীবের বক্তব্য, “কাজের ক্ষেত্রে কিন্তু খুব প্রভাব পড়েনি। মৌখিক ছাড়াছাড়ির পরও আমরা ‘বিন্দাস’ করেছি। টালিগঞ্জের বাকি নায়িকাদের তুলনায় শ্রাবন্তী অনেকটা এগিয়ে। আমি ওর সঙ্গে আবারও কাজ করতে চাই। কোনও সমস্যাই নেই”। ছেলে অভিমন্যু ওরফে ঝিনুককে নিয়েও কিন্তু এদিন নিজের মতামত জানান রাজীব।

ছেলে ঝিনুকের কেরিয়ার নিয়ে অনেক আলোচনা হলেও তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে নাক গলান না রাজীব। ভরসা করেন ছেলের মায়ের (শ্রাবন্তী) উপরই। ঝিনুক প্রসঙ্গে রাজিবের বক্তব্য যে, “অবশ্যই ভাল সম্পর্ক। শনি-রবিবারের ছুটিতে যখন ও আমার কাছে আসে সিনেমা নিয়ে আলোচনা হয়। বলেছি ধারাবাহিকে আমার সঙ্গে কাজ করিস না, কারণ সারা দিনের পরিশ্রম তুই নিতে পারবি না। আমি ছবি তৈরি করলে আমাকে অ্যাসিস্ট করিস”।

পাশাপাশি ঝিনুক এবং তার বান্ধবীর সম্পর্ক নিয়েও বিগত বেশ কিছুদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর চর্চা শুরু হয়েছে। এই প্রসঙ্গে বাবা হিসেবে রাজিব জানান, “হ্যাঁ, দেখেছি চর্চা হয়। ওদের ব্যক্তিগত বিষয় আমি কী বলি! তা ছাড়া প্রেমের বিষয় নিয়ে আমার সঙ্গে কথা বলার সাহসও নেই ঝিনুকের। ওর মা আছে, বুঝবে এই সব”। পরিচালকের এই কথা থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় বিচ্ছেদের পর বহু বছর পেরিয়ে গেলেও আজও অনেক দিকেই কিন্তু শ্রাবন্তির উপরেই ভরসা করেন তিনি।

যদিও বর্তমানে তাদের ব্যক্তিগত সম্পর্ক ঠিক কোন পর্যায়ে রয়েছে সেই নিয়ে কিছুই জানা যায়নি। সবশেষে রাজীবকে তার পরবর্তী ছবি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পরিচালক জানান, “চিত্রনাট্য চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। এন.কে সলিল লিখেছেন। সুরিন্দর ফিল্মসের প্রযোজনায়ই ছবি বানাব। থাকবেন দু’জন নায়ক এবং নায়িকা। তবে কারও নাম এখন বলা যাবে না। তা ক্রমশ প্রকাশ্য”।

প্রসঙ্গত ২০০৩ সালে পরিচালক রাজিব কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন শ্রাবন্তী। এরপর ২০১৬ সালে আচমকাই পরকীয়া সম্পর্কের অভিযোগে তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে যায়। যদিও বিচ্ছেদের পর দেখা যায় রাজীব নয়, একাধিক সম্পর্কে পরপর জড়িয়ে পড়েছিলেন শ্রাবন্তীই। উল্লেখ্য রাজীব কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের পর পর আরো দুইবার বিয়ে করেছিলেন নায়িকা। যদিও তার এই দুটি বিয়েও খুব বেশিদিন টেকেনি।

Leave a Comment