1. admin@bartamannews.com : admin :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৪:৪৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
গোগনগর কয়লাঘাট হাট নয় যেনো মরন ফাঁদ গ্যাস বন্ধের প্রতিবাদে তিতাস গ্যাস অফিস সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে জালকুড়ি এলাকাবাসী জেল-জরিমানা দিয়ে পরিবেশ রক্ষা করা যাবে না: না.গঞ্জ জেলা প্রশাসক উচ্চ আদালতে জামিন হওয়ায় গিয়াসউদ্দিনের রিমান্ড শুনানী স্থগিত ভাড়া হবে লিফলেট দেখলে উঠে যান বাসায়, সখ্যতা গড়ে হাতিয়ে নেন স্বর্ণালঙ্কার বেনজীর আহমেদ প্রসঙ্গে র‍্যাব মহাপরিচালক ব্যক্তির সঙ্গে র‍্যাবের ভাবমূর্তি নষ্টের সম্পর্ক নেই ফরিদপুর ডায়াবেটিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউ ওয়ার্ডের উদ্বো সংসদে প্রধানমন্ত্রী মালয়েশিয়ায় শ্রমিক জটিলতায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা ধর্মমন্ত্রীর বেহাত আইফোন মালয়েশিয়া থেকে উদ্ধার চোর চক্রের ৯ সদস্য গ্রেপ্তার তিনি আইনজীবী নন, টাউট

তিনি আইনজীবী নন, টাউট

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৫ জুন, ২০২৪
  • ১৯ বার পঠিত

মো. সেলিম উদ্দিন। দেখতে পুরোদস্তর একজন আইনজীবী। সাদা জামার ওপর কালো কোট। গলায় কলার ব্যান্ড (গলাবন্ধনী)। নিজের নামে ব্যবহার করেন সিল। আসলে আইনজীবী নন তিনি। বার কাউন্সিলের কোনো সনদও নেই তার। আইনজীবীদের ভাষায় তিনি একজন ‘টাউট’। সেলিম উদ্দিন ১৭ বছর ধরে নিজেকে আইনজীবী পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে আসছিলেন বিচারপ্রত্যাশী ও আদালতের সঙ্গে।

বুধবার তার প্রতারণা ধরা পড়েছে সুপ্রিম কোর্টে। আইনজীবীদের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে তিনি স্বীকার করেছেন তার কোনো সনদ নেই। ইতোমধ্যে সনদ ছাড়াই আইন পেশার নামে প্রতারণার অভিযোগে ওই ব্যক্তিকে শাহবাগ থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। তার নামে প্রতারণার মামলা হয়েছে।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহসম্পাদক ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির সমকালকে বলেন, সুপ্রিম কোর্ট মূল ভবনের নিচ তলায় ২৩ নম্বর হাইকোর্টে মামলা শুনানিকালে একজন আইনজীবীর পেছন থেকে পরামর্শ ও নির্দেশনা দিচ্ছিলেন সেলিম উদ্দিন। এ সময় কয়েকজন আইনজীবীর সন্দেহ হয়। আদালতের ভেতরেই তাকে চ্যালেঞ্জ করেন অপর আইনজীবীরা। এক পর্যায়ে তাকে বাইরে নিয়ে আসা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর নিয়ে যাওয়া হয় সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের দ্বিতীয় সমিতির কক্ষে। সেখানে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের ওই ব্যক্তির কাছ থেকে তার নামে থাকা সিল ও কয়েকজন আইনজীবীর ভিজিটিং কার্ড উদ্ধার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে রাজবাড়ী জেলার বাসিন্দা সেলিম উদ্দিন জানান, তিনি ২০০৭ সালে আইনে স্নাতক করেছেন। তবে তার বার কাউন্সিলের কোনো সনদ নেই। ওই সময় থেকে তিনি ঢাকার আদালতে এবং ২০১৮ সাল থেকে হাইকোর্টের বিভিন্ন বেঞ্চে যাতায়াত করছেন। বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা বিচারপ্রার্থীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তাদের মামলায় জিতিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তার পরিচিত আইনজীবীদের কাছে নিয়ে যেতেন।

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৪ বর্তমান নিউজ
Theme Customized By Shakil IT Park