ভো-টে জিতে আনন্দে আ-ত্মহা’রা হলেন সোহম চক্রবর্তী,করলেন বি-স্ফো’রক মন্তব্য, ব্যাপক ভাইরাল ভিডিও !

নিজস্ব প্রতিবেদন: চলতি বছরে বাংলার ভোটযুদ্ধ ছিল অত্যন্ত আকর্ষণীয়।দেশের প্রতিটি খবরের চ্যানেল থেকে শুরু করে ইন্টারনেট দুনিয়া সরগরম ছিল এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। অনেকেই মনে করেছিলেন রাজ্যে বিজেপির হাওয়া চলার কারণে হয়তো এবারে ক্ষমতার পরিবর্তন হবে।অর্থাৎ শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস এর হাত থেকে ক্ষমতা পৌঁছে যাবে ভারতীয় জনতা পার্টির হাতে।

গত বছরের মাঝামাঝি সময় থেকে বিজেপির নেতারা জোরকদমে প্রচার চালাচ্ছিলেন। বাংলায় বিজেপির সংগঠন দু-র্বল থাকার কারণে বাইরে থেকে স্টার প্রচারক এবং কেন্দ্রীয় নেতারা এসে প্রচার চালাচ্ছিলেন।এমনকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা অমিত শাহ রীতিমতো বাংলায় 200 টিরও বেশি আসনে জয় এর লক্ষ্যমাত্রা দিয়ে গিয়েছিলেন সকলকে।

নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী 8 দফা ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হবার পর মে মাসের গত 2 তারিখে ভোটের ফলাফল প্রকাশ পায়। প্রথমদিকে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডি ল-ড়া-ই দেখা গেলেও শেষ পর্যন্ত দেখা যায় বিজেপিকে অতিক্রম করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপির সকল তারকা প্রার্থী পরা-জিত হয়েছেন।এমনকি নিজেদের সাং-সদ পদ ছেড়ে যারা ভোটের ল-ড়া-ই করার জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকেই হে-রে গিয়েছিলেন। রাজ্যে বিজেপির প্রাপ্ত আসন সংখ্যা ছিল 77 অথচ 200 টিরও বেশি আসনে জিতবে বলে দাবি করেছিল ভারতীয় জনতা পার্টি।

বিজেপির মত তৃণমূল কংগ্রেসের ক্ষেত্রেও ছিল তারকা প্রার্থীদের রমরমা। পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, কৌশানী মুখোপাধ্যায়, সায়নী ঘোষ, জুন মালিয়া, লাভলী মৈত্র, সোহম চক্রবর্তীর সহ অনেকেই তৃণমূলের হয়ে ভোটে ল-ড়া-ই করার জন্য দাঁড়িয়ে ছিলেন। অন্যান্যরা সদ্য তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেও সোহম চক্রবর্তী অনেকদিন ধরেই দিদির হয়ে কাজ করে চলেছেন।চলতি বছরের নির্বাচনে চন্ডিপুর বিধানসভা আসন থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি।

ভোটের আগে বেশ কয়েকদিন প্রচারেও বাধা পড়েছিল তার। কারণ সোয়াইন ফ্লুতে আ-ক্রা-ন্ত হয়েছিলেন সোহম। কিন্তু ফলাফল প্রকাশ পেতেই দেখা যায় বিপুল ভোটের ব্যবধানে সকল প্রার্থীদের পরা-জিত করেছেন তিনি। এরপর এই জয়ের আনন্দে আ-ত্মহা-রা হয়ে বিস্ফো-রক মন্তব্য করে বসেন অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী।

সাংবাদিকদের সামনে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে গিয়ে অভিনেতা বলেন,”এই জয় আমার জয় নয় এই জয় আমাদের দলের জয়! এটি হচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার উন্নয়নের জয়। বিরোধীদের অহংকার সম্পূর্ণ ভে-ঙে চু-র-মা-র করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষ যখন আমাদের পাশে আছে তখন কেউ আমাদের কোনো ক্ষ-তি করতে পারবেনা”।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button