পৃথিবীর সবচেয়ে দামি গাছ, ১ কাঠা চাষ করলেই এক বছরে কোটিপতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা খুব অল্প সময়ে কোটিপতি হয়ে গেছেন এবং সেই দেখে বাকি অন্যান্য মানুষেরা কিন্তু জীবনে অল্প সময় অর্থোপার্জনের জন্য পথে নেমে গেছে । সারা বছর ধরে নাকে দড়ি দিয়ে খাটাখাটনি করার পরও তেমন ভাবে মিলছেনা উপার্জন । যার ফলে স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে । কিন্তু আপনি যদি পৃথিবীর বিখ্যাত গাছটি মাত্র এক কাঠা জমির উপর চাষ করেন তাহলে কিন্তু আপনি রাতে রাতে কোটিপতি হতে পারেন । আমাদের দেশ ভারত বর্ষ বিভিন্ন ফসলের চাষ হয়ে থাকে । তবে এই গাছের চাষ সাধারণত খুব কম হয়ে থাকে । চাইলে আপনি করতে পারেন যে কোন জায়গাতে ।

আপনার কাছে কি এক কাঠা জমি আছে যদি আপনার কাছে এক কাঠা জমি থাকে তাহলে সেখানে আপনি অতি অবশ্যই চাষ করে ফেলুন চন্দন গাছের । একদম ঠিক শুনেছেন চন্দন গাছ সাধারণত তিন প্রকার হয় সে চন্দন রক্তচন্দন এবং রক্ত চন্দন ও পিত চন্দন যদিও এখনো কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি পিৎ চন্দনের । তবে বাজারে শ্বেতচন্দনের চাহিদা প্রচুর। এই চন্দনের উপকারিতা কি কি এটা বলতে গেলে সময় সম্পূর্ণ ব্যবহার হয়ে যাবে। কারণ এর উপকারিতা এত রয়েছে যে বলে শেষ করা সম্ভব নয় ।

তবুও সংক্ষেপে বলতে গেলে এমনটা বলতে যা বিভিন্ন ওষুধ তৈরি ক্ষেত্রে সুগন্ধি ধূপ তৈরি ক্ষেত্রে মাজন তৈরির ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় চন্দন কাঠ। একবার চন্দন কাঠ চাষ করলে দশ থেকে পনের বছর পর আপনি পেনশনে মতন আর্থিক সুবিধা পাবেন । একদমই ঠিক শুনেছেন একটি চন্দন গাছ থেকে মোটামুটি পাঁচ থেকে দশ কেজি চন্দন উৎপন্ন হবে যার বর্তমান বাজার মূল্য ৬ লাখ টাকা এবং এক কাঠা জমির উপর যদি সম্পূর্ণ চন্দন গাছ চাষ করে সেটি আপনাকে কোটিপতি করে দিতে পারবে । তবে এই গাছ চুরি হয় অনেক রকম ভাবে ।

চুরির হাত থেকে বাঁচাতে হবে । নিচু জমিতে গাছ চাষ করা যাবে না। কারণ অতিরিক্ত জলের দরকার পড়েনা । অধিক তাপমাত্রা বিশিষ্ট অঞ্চলের চাষ করা যাবে না। এটি চন্দন গাছ সম্পূর্ণ পরিপূর্ণ হতে ১২ বছর সময় লাগে এবং ১২ বছর পর আপনি এটি সরকারকে বিক্রি করতে পারেন । কিন্তু কোনোরকম ভাবে কারচুপি করে বিদেশে বিক্রি করতে যাবেন না । তাহলে প-ড়ে যা-বেন বি-পদে । আপনি একমাত্র চন্দন কাঠ সরকারকে বিক্রি করতে পারবেন । সরকার যদি চায় তাহলে সেখানে বিদেশে রপ্তানী করতে পারে । তাহলে আর ভাবনা চিন্তা না করে আজ থেকে শুরু করে দেন চন্দনকাঠের চাষ ।এবং হয়ে উঠুন কোটিপতি অল্প সময়ে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button