এই দিন থেকে শহরের পথে নামছে বাস, সব কর্মীদের আগামিকাল হাজিরার নির্দেশ!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- দেশের এই ভ-য়াব-হ প-রি-স্থিতি যখন আরও ভ-য়াব-হ হয়েছিল তখন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল একাধিক গণমাধ্যম পরিষেবাগু-লি । যেমন বাস-ট্রেন ট্রাম্প এমনকি বিমান ।কিন্তু পরিস্থিতি আবার পুনরায় স্বাভাবিক হতে শুরু করলে বাকি সমস্ত কিছু পরিসেবা চালু হলেও বাসের পরিষেবার তেমন ভাবে চালু হয়নি কোনদিনই । তার পাশাপাশি দ্বিতীয় ঢে-উ রীতিমতো ত-ছন-ছ করে দিয়েছে ভারতের জনজীবনকে । সেই অর্থে পুনরায় সেই সমস্ত পরিষেবা কে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে । সেই তালিকায় নাম ছিল সরকারি এবং বেসরকারি বাসের । যার ফলে বেসরকারি বাসের মালিকের কপালে চিন্তার ভাঁজ সৃষ্টি হয়েছিল।

একদিকে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেট্রোল-ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়া তার পাশাপাশি এই করোনা প্রভাব রীতিমতো চিন্তায় ফেলেছে বাস মালিকদের কে । লকডাউন আরো মেয়াদ বাড়ানো হলেও অফিস কাছারিতে ২৫% বা কোথাও কোথাও ৫০% কর্মী নিয়ে চালু করার কথা জানিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে যে অফিসে পৌঁছাবো কিসের মাধ্যমে ? অর্থাৎ যারা বাসের সাহায্য নিয়ে যেত তারা অফিসে পৌঁছে কি করে ? কারণ এখনও পর্যন্ত খোলা হয়নি বাস পরিষেবা ।

তবে পরিস্থিতি পুনরায় স্বাভাবিক করতে ইতিমধ্যে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সরকারি বাস চালানোর কথা জানানো হয়েছে । এর আগে সরকারি কর্মচারীদের জন্য সরকারি বাসের ব্যবস্থা ছিল । কিন্তু এবার বেসরকারি কর্মচারীদের জন্য সরকারি বাস চালানোর কথা জানিয়েছে রাজ্য সরকার । আগামীকাল থেকে সমস্ত ড্রাইভার কন্টাকটার ও বাকি সমস্ত কর্মীদেরকেও হাজিরা দিতে বলা হয়েছে । বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে সরকারি বাসের সংখ্যা । যার ফলে সাধারণ মানুষের দু-র্ভো-গের শি-কার কম হতে হবে এমনটাই মনে করছে অনেকে ।

অপরদিকে দীর্ঘদিন ধরে বেসরকারি বাস পরিষেবা বন্ধ থাকার ফলে রীতিমতো উ-ত্তপ্ত হচ্ছে বাস মালিকের মেজাজ । এবং ক্রমশ হুশিয়ার সুরে তারা জানাচ্ছে যে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে যদি পরিষেবা স্বাভাবিক না করা হয় তাহলে তারা বড়োসড়ো আন্দোলনের পথে নামবে । কারণ এমন কিছু জিনিস থাকে যেগুলো তাদেরকে বাস চালালেও দিতে হয় না চালানো দিতে হয় । সেই অর্থে প্রতিনিয়ত গুনতে হচ্ছে মোটা টাকা । ইএমআই ব্যাংক লোন ইত্যাদি টাকা প্রতিনিয়ত তাদের কে ভরতে হচ্ছে যা তাদের পকেট থেকে যাচ্ছে ।

এই সূত্রে সেই সংগঠনের নেতা রাহুল চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন যে কঠিন এই সব পরিস্থিতিতে যাতে সকল সুবিধা হয় সেই ভাবনা চিন্তা ভাবতে হবে রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে । ইতিমধ্যে আমরা রাজ্য সরকারকে এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে বহুবার আমাদের অসুবিধার কথা জানিয়েছে । কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে কোনরকম সাহায্য পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন রাহুল চট্টোপাধ্যায় । যদিও রাজ্য সরকার অনেকটাই সাহায্য করেছে তাদেরকে এমনটা জানা যাচ্ছে তার থেকে । তবে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে যে কবে থেকে সম্পূর্ণ রকম ভাবে চালু হবে বাস পরিষেবা ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button