বাজারে বাজারে ছড়িয়ে পড়েছে নকল ডিম, বি-ষাক্ত নকল ডিম চেনার ১০টি দারুণ কার্যকরী উপায় জেনে নিন!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আসল আর নকল এর মধ্যে সর্বদা একটি ল-ড়াই লেগে থাকে । নকল চাই আসলের মতন হয়ে সবার কাছে পৌঁছেতে । কিন্তু আসল নিজের মহিমায় সকলের কাছে পৌঁছেই । যেকোন ক্ষেত্রে হতে পারে এটি । পড়াশোনা তে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে খাদ্য সামগ্রী যাবতীয় কিছুতে এমনটা হতে পারে । কিন্তু আমরা ঠিক কোন কোন উপায় বের করি নি নকল বস্তুকে চেনার জন্য । ঠিক যেমনটা বের করেছি ডিমের ক্ষেত্রে ।কারণ এখন খাদ্যসামগ্রীতে চলে এসেছে পরীক্ষা করার সময় । আসল নকল এই তালিকায় ঢুকে গেছে খাদ্য সামগ্রী ও ।

শরীরের পুষ্টি এবং রো-গ প্র-তিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ডা-ক্তারবাবুরা অধিকাংশ সময় ডিম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন ।কিন্তু এই ডিমে রয়েছে ভেজাল। বাজারে চলে এসেছে নকল ডিম। যা মূলত চীন থেকে প্রস্তুত হয়ে থাকে ।তাহলে কিভাবে চিনবেন যে কোনটি নকল এবং কোনটি আসল ডিম তা জানাবো আপনাদের। কৃত্রিম ডিম তৈরিতে ব্যবহৃত রাসায়নিক উপাদান ক্যা-লসিয়াম কা-র্বনেট, স্টা-র্চ, রে-সিন, জি-লেটিন মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষ-তিকর। দীর্ঘদিন এই ধরনের ডিম খেলে স্না-য়ুত-ন্ত্র ও কি-ডনিতে স-মস্যা হতে পারে। ক্যালসিয়াম কা-র্বাইড ফু-স-ফুসের ক্যা-ন্সারসহ জ-টিল রো-গের কারণ ।

১)কৃত্রিম ডিম অনেক বেশি ভঙ্গুর। এর খোসা অল্প চাপেই ভেঙে যায়। ২)এই ডিম সিদ্ধ করলে কুসুম বর্ণহীন হয়ে যায়। ৩)এই ডিম ভাঙার পর আসল ডিমের মতো কুসুম এক জায়গায় না থেকে খানিকটা চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে।অনেক সময় পুরো কুসুমটাই নষ্ট ডিমের মত ছড়ানো থাকে। ৪)কৃত্রিম ডিম আকারে আসল ডিমের তুলনায় সামান্য বড় । ৫)এর খোলস খুব ম-সৃণ হয়।

খোসায় প্রায়ই বিন্দু বিন্দু ফুটকি দাগ দেখা যায়। ৬)রান্না করার পর এই ডিমে অনেক সম্যেই বাজে গন্ধ হয়। কিংবা গন্ধ ছাড়া থাকে। আসল কুসুমের গন্ধ পাওয়া যায় না। ৭)নকল ডিমকে যদি আপনি সাবান বা অন্য কোন তীব্র গন্ধ যুক্ত বস্তুর সাথে রাখেন তাহলে সেই গন্ধ ডিমের মধ্যে প্রবেশ করে যায় । ৮)নকল ডিমের আকৃতি অন্য ডিমের তুলনায় তুলনামূলক লম্বাটে ধরণের হয়ে থাকে। তাহলে উপরিক্ত নিয়ম অনুসারে আপনি জেনে গেলেন যে কোনটি আসল ডিম এবং কোনটি নকল ডিম । কাজেই এরপর বাজার থেকে ডিম আনার পর অবশ্যই পরীক্ষা করে নেই সেটি ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button