বাঁশ ও নারকেল গাছের ডগা দিয়ে দারুণ কায়দায় যেভাবে মাছ ধরা যায় প্রচুর, রইল দারুণ পদ্ধতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের শহরের তুলনায় গ্রামের দৃশ্য ও পরিবেশ কিছুটা হলেও আলাদা হয় । কারণ সেখানে সবুজে ভরা মাঠ-ঘাট পুকুর নদী নালা ইত্যাদি থেকে থাকে । যা শহরে খুব একটা দেখা যায়না । শহরে মূলত কংক্রিটের জ-ঙ্গল দেখা যায় কিন্তু গ্রামে দেখা যায় সত্তিকারের সবুজ গাছপালার জঙ্গল । শুধুমাত্র সবুজ থাকে নয় তার পাশাপাশি গ্রামের পরিবেশে মানুষ অত্যন্ত আবেগ এবং দরদী হয়ে থাকে । বিভিন্ন পদ্ধতিতে তারা বিভিন্ন রকম কাজকর্ম করার চেষ্টা করেন । যা শহরে মানুষদের কাছে অ-বাক করার মতন ।

আমরা এর আগে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দেখেছি বিভিন্ন ধরনের ঘটনা । সেই ঘটনার মাধ্যমে আমরা দেখতে পেয়েছি যে গ্রাম্য পদ্ধতিতে কিভাবে বাড়ির সামনে জমে থাকা জল থেকে মাছ ধরার চেষ্টা করে কোন যুবক বা যুবতী । তার পাশাপাশি আমরা দেখেছি নদীতে নৌকা নিয়ে গিয়ে ডুব সাঁতার দিয়ে মাছ ধরার পদ্ধতি। । তবে আজ যে পদ্ধতি কথা বলব সম্পূর্ণ আলাদা ।তার পাশাপাশি এই ধরনের পদ্ধতি দেখে অ-বাক রীতিমতো নেট পাড়ার মানুষেরা । এবং আমি নিশ্চিত যে আপনি অবাক হবেন এই পদ্ধতিতে দেখে ।

আমাদের পশ্চিমবঙ্গে যেহেতু বাঙালির বসবাস তাই পশ্চিমবঙ্গে বাজারে মাছের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়তে থাকবে এমন টা আগে থেকে অনুমান করা যায় । কারণ বাঙালি মানেই মাছ-ভাত । অনেকে হয়তো এই সমস্ত ব্যাপার গুলো নিয়ে বাঙালিদেরকে বিদ্রূপ করে । কিন্তু তবুও আমরা গর্বের সাথে বলি যে আমরা মাছ ভাতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি এবং সেই অর্থে প্রতিনিয়ত বাড়ছে পশ্চিমবঙ্গের বাজারে মাছের চাহিদা । শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গ নয় বাংলাদেশ ও ভারতবর্ষের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ছে মাছের চাহিদা ব্যাপক হারে।

সম্প্রতি ইউটিউবে এ একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে সেই ভিডিওতে দেখানো হয়েছে গ্রাম্য পদ্ধতিতে অভিনব কায়দায় মাছ ধরার একটি দৃশ্য । এর মাধ্যমে আপনি দেখলে বুঝতে পারবেন যে দুইটি যুবক অভিনব কায়দায় জলে থাকে মাছ ধরেছে । প্রথমে তার একটি বড় বাশ কে দুই ভাগ করে নিয়েছে । তারপর তার মধ্যে কিছু মাছের খাবার এবং অপর প্রান্ত টি তারজালি দিয়ে বেঁধে দিয়েছে । এরপর সেটি তারা জলাশয়ের মধ্যে রেখে দিয়েছে । এর ফলে মাছগু-লি খাবারের সন্ধানে সেই ফাঁপা বাঁশ এর মধ্যে যখনই প্রবেশ করবে তখনই তারা আ-টকে যাবে কিন্তু যেহেতু অপরদিকে প্রান্তটি তার জালি দিয়ে আ-টকানো আছে তাই বেরোতে পারবে না । ঠিক এই পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে দুই যুবক ধরে ফেলেছিল অনেকগু-লি মাছ অল্প সময়ে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button