অবশেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস ভারতবাসীর! অবশেষে সস্তা হতে চলেছে পেট্রোল-ডিজেলের দাম! বড় পদক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- তাহলে কি সত্যিই এবার কমতে চলেছে পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম ?যে হারে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম তাতে রীতিমতো চিন্তিত এবং আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষেরা। প্রতিদিন সকালবেলা উঠে একটা আতঙ্ক আমাদের গ্রাস করছে যে আজকে পেট্রোলের দাম বাড়বে না তো ?কারণ পুজোর সময় আমরা দেখেছি 35 পয়সা প্রতি লিটার পেট্রোলের দাম বৃদ্ধি করেছিল এবং এই মুহূর্তে প্রতি লিটার পেট্রোলের দাম দাঁড়িয়েছে 106 টাকা। অপরদিকে সেঞ্চুরির কাছাকাছি রয়েছে ডিজেলের দাম।

গত ডিসেম্বর মাস থেকে পেট্রোলের দাম সর্বাধিক 18 টাকা বৃদ্ধি হয়েছে এবং ডিজেলের দাম 17 বৃদ্ধি ঘটানো হয়েছে ।যার ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের উপর প্রভাব পড়বে বলে অনুমান সাধারণ মানুষের। এমতাবস্থায় দেশের প্রতিটি মানুষ প্রশ্ন করছে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদিকে কেন এত দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। তার একটা সূক্ষ্ম হিসেব আপনাদের সামনে তুলে ধরি এই মুহূর্তে পেট্রল এর বেস প্রাইজ হচ্ছে ৩৪.১৯ টাকা, সেখানে কেন্দ্র কর চাপাচ্ছে ৩২.৯ টাকা।

ডিলারদের ট্যাক্স হয়েছে ৩.৭৭ টাকা। রাজ্যের কর হচ্ছে ২১.৩৬ টাকা। যার দরুন পেট্রোলের লিটার প্রতি দাম হয়েছিল ৯২.৫৮ টাকা।বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমতে থাকলে ও ভারতীয় বাজারে কিন্তু হু হু করে বাড়ছে পেট্রোপণ্যের মূল্য। কিন্তু এ ব্যাপারে স্থিরতা আনা প্রয়োজন বলে মনে করছেন প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির নিজে। তাই তেল প্রস্তুতকারী সংস্থা গুলির সাথে বৈঠকে বসতে চলেছেন তিনি। আন্তর্জাতিক তেল সংস্থার সাথে বৈঠক করতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

যার ফলে তেলের দাম কমার আশায় রয়েছেন সাধারণ মানুষ। বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে ব্যারেল প্রতি তেলের দাম 65 থেকে 70 ডলার এর মধ্যে রাখা উচিত। বর্তমানে অপরিশোধিত তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি 85 ডলার।জানা গিয়েছে সরকারি এবং বেসরকারি তেলশোধন সংস্থা গুলিকে নিয়ে একটি টিম গঠিত হয়েছে বিশ্ব বাজার থেকে তেল ক্রয় করার সময় আরো ভালো চুক্তির পক্ষে এই টিম দর কষাকষি করতে চলেছে।

সেই বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং পেট্রলে পাশাপাশি অন্য কোন জ্বালানি ব্যবহার করা যাবে কি না সে ব্যাপারে আলোচনা হবে বলে জানা যাচ্ছে। তাছাড়া উক্ত বৈঠকে হাইড্রোকার্বন এর জ্বালানি খনন উত্তোলন নিয়েও আলোচনা সম্পন্ন হবে। ‌ নতুন কোন তেল উৎপাদক দেশের সঙ্গে চুক্তি হতে পারে কিনা সেটিও জানা যাবে উক্ত বৈঠকে। আগামী সময়ে পেট্রোলের দাম কমতে পারে বলে আশায় বুক বাঁধছে সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবার মানুষেরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button