কলকাতা ও দুই মেদিনীপুর সহ এই 7 টি জেলায় একটানা চলবে মু’ষলধারে বৃষ্টি, স-র্তকতা জারি আবহাওয়া দপ্তরের।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- প্রতিনিয়ত রাজ্যবাসী মনে প্রশ্ন আসতে শুরু করছে যে এই বৃষ্টির প্রভাব কত দিন ধরে চলবে । কারন আমরা দেখেছি গত তিন থেকে চারদিন ধরে লাগাতার একটানা বৃষ্টি হয়ে যাচ্ছে । যার ফলে শহরের বিভিন্ন অঞ্চলে জমেছে জল । নিকাশি ব্যবস্থা ভালো থাকা না থাকার জন্য শহরের রাস্তাঘাটের এক হাঁটু অব্দি জলের উচ্চতা পৌঁছেছিল । সেই অর্থে মানুষ রীতিমতো না-জে-হাল । বাজার ঘাট রাস্তাঘাট এমনকি অফিস কাছে সবকিছু বন্ধ হয়ে গিয়েছে ।কিভাবে এর থেকে রেহাই পাওয়া যাবে তা ভেবে কূলকিনারা পাচ্ছ না অনেকে ।

তাই স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন আসতে শুরু করে যে কবে কমবে এর প্রভাব। সম্প্রতি আলিপুর আবহা দপ্তর এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে বঙ্গোপসাগরের উপকূল পরিবেশ থাকার জন্য একটি নি-ম্নচা-পের সৃষ্টি হয়েছে । এবং এই নিম্নচাপ এর জন্য সমুদ্র উ-ত্তাল থাকবে । পরবর্তী ক্ষেত্রে নি-ম্নচা-প গ-ভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে। যার ফলে সমুদ্র উপকূলবর্তী অঞ্চলে গু-লিতে জা-রি করা হয়েছে লাল সতর্কবার্তা ।

মৎস্যজীবীদের মাছ সমুদ্রের যেতে ইতিমধ্যে বারণ করেছে প্রশাসন । কারণ এই মুহূর্তে সমুদ্রের উত্তাল হয়ে উঠবে । আর এই নিম্নচাপের হাত ধরেই পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করবে বর্ষা । তার সাথে সাথে তার আগে যে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাতের কথা জানিয়েছে সেখানে ঝোড়ো হওয়ার কথা উল্লেখ করেছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর । ৩০-৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা বেগে ঝোড়ো হাওয়া ও ব-জ্রবি-দ্যুৎ ।

তবে সম্প্রতি আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানালেন যে উত্তরবঙ্গে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি সম্ভাবনা রয়েছে অর্থাৎ কালিম্পং জলপাইগুড়ি আলিপুর দুয়ার এই সমস্ত জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে । তার সাথে রয়েছে ব-জ্রবি-দ্যুৎ এর সম্ভাবনা । এর পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুর পশ্চিম মেদিনীপুর উত্তর ২৪ পরগনা দক্ষিণ ২৪ পরগনা তো একই পরিমান বৃষ্টি লক্ষ্য করা যাবে কিছুটা পরিমাণ । বৃষ্টির প্রভাব কমতে শুরু করবে ১৮ জুন এর পর থেকে । পশ্চিম বর্ধমান পূর্ব বর্ধমান বাঁকুড়া বীরভূম থেকে ভারী বৃষ্টি লক্ষ্য করা যেতে পারে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button