ঘরের ভেতরে বাচ্চা নিয়ে বাসা করেছে বড় কো-ব’রা, যুবক দেখে লেজ ধরে টেনে আনতেই ঘটলো বি-প-ত্তি, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বাড়ি হোক বা খাটের নিচ এমনকি রান্নাঘর হোক বা ঠাকুরবাড়ির, বাড়ির মধ্যে হোক বা বাড়ির বাইরে যদি কোনো কারণে বি-ষাক্ত সা-পের সন্ধান পাওয়া যায় তাহলে আমরা কিছুটা হলেও আ-তঙ্কিত হয়ে উঠি । কারণ আগেকার যুগে সা-পের কা-মড়ে মৃ-ত্যু কত অনেক মা-নুষের । কিন্তু প্রতিনিয়ত আমরা উন্নত হচ্ছি । তার সাথে রাতে বেড়ে চলেছে এর প্র-ভাবও । কিন্তু সবকিছু কে-টে গেল মানুষ ভুলতে পারেনা মনের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে আ-তঙ্ক কে ।

বর্তমানের এই সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে আমরা অনেক কিছুই ভাইরাল হতে দেখি প্রতিনিয়ত । কিছু না কিছু ভাইরাল হচ্ছে এই সোশ্যাল মিডিয়া হাত ধরে, উঠে আসছে খবরের শিরোনামে । সেই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে লাইম লাইটের কেন্দ্রে উঠে আসতে দেখা যায় সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষদেরকে । কখনো না চ কখনো গান কখনো আবার কোনো কোনো প্রতিভাকে সামনে ধরে রেখে প্রতিনিয়ত খবরের শিরোনামে উঠে আসছে কেউ না কেউ । কারণ যত দিন যাচ্ছে ততই সক্রিয় হয়ে উঠছে সোশ্যাল মিডিয়া ।

বনে জঙ্গলে হোক বা অন্য কোথাও হয় এর আগে বিভিন্ন ধরনের সা-পের ভিডিও দেখতে পাই সোশ্যাল মিডিয়াতে । যেহেতু সা-প একটি বি-ষাক্ত প্রা-ণী এবং মানুষের শরীরকে অত্যন্ত ক্ষ-তি-কর তাই সা-পকে ভ-য় পা-ই অনেকে । সম্প্রতি উড়িষ্যার একটি গ্রামের বাড়ির পাশের পরিত্যক্ত জায়গা থেকে বি-ষাক্ত সা-পকে দেখতে পেয়েছে সেখানকার এলাকাবাসীরা । তারা বিন্দুমাত্র সময় নষ্ট না করে খবর দেয় স্থানীয় এক সা-পুড়েকে । সেখানে এসে উপস্থিত হয় স্থানীয় এক সা-পুড়ে এবং তিনি গিয়ে দেখেন যে সেখানে রীতিমতো ক্ষি-প্ত হয়ে রয়েছে বড় একটি কো-বরা সা-প।

এই ভিডিও টি অন্যান্য সা-পের ভিডিও থেকে একটু আলাদা হতে চলেছে । কারণ এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যখন সেই সা-পুড়ের সাপ কে উদ্ধার করার জন্য মরি-য়া হয়ে উঠেছে তখন হঠাৎ করে এসে সেই সা-পটি সেই সা-পুড়ের পায়ে এক ছো-বল মা-রে । যার ফলে উপস্থিত গ্রামবাসীরা আ-ত-ঙ্কিত হয়ে যায় । যদিও তেমন কোনো ক্ষ-য়ক্ষ-তি হয়নি বলে জানা গেছে । তবে এ ধরনের ঘটনা থেকে মুক্তি পাবার জন্য সমস্ত রকম ভাবে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে । পরবর্তী ক্ষেত্রে দেখা যায় যে সেই বি-ষাক্ত কো-বরা সা-পটাকে কালো রঙের একটি ব্যা-গে ভ-রে নি-য়ে চলে যায় সাপুরে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button