বঙ্গোপসাগরে তৈরি ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’ সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলবে বাংলার এই দুই জেলায়! কড়া সর্তকতা জারি রাজ্য সরকারের! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :-বর্তমানে গোটা বাংলা জুড়ে সোনার ফসল ফলে রয়েছে মাঠে ।এমতাবস্থায় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর । যার ফলে ব্যাপক চিন্তিত চাষী ভাই রা । বছরে এই একটা সময় ফসল ফলিয়ে তারা লাভের মুখ দেখে । কিন্তু এই সময়ে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কথা শুনে রীতিমতো মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে তারা ।

এমতাবস্থায় দাঁড়িয়ে কারুর করনীয় কিছু নেই ।কারণ এটি একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ ।সম্প্রতি জানা যাচ্ছে যে পুনরায় একটি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে চলেছে বাংলার বুকে এবং এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেয়া হয়েছে জাওয়াদ । এই ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ করেছে সৌদি আরব।

উপকূলবর্তী অঞ্চলে মৎস্যজীবীদের কে শুক্রবার থেকে রবিবার পর্যন্ত মাছ ধরতে যেতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে প্রশাসন ।তার পাশাপাশি যারা ইতিমধ্যে চলে গিয়েছেন তাদেরকে বৃহস্পতিবার সন্ধের মধ্যে ফিরে আসার আর্জি জানানো হয়েছে । যারা ফিরে আসতে পারবেন না তারা অতি অবশ্যই কাছাকাছি কোন দ্বীপে আশ্রয় নিন ।

তবে বিশেষ সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের এই দুই জেলা তে । কারণ এই দুই জেলায় সবথেকে বেশি মাত্রায় প্রভাব পড়বে এই ঘূর্ণিঝড়ের । এই অবস্থাতে উপকূলবর্তী অঞ্চলে গুলিতে ঝড়ো হাওয়ার গতিবেগ ঘন্টায় প্রায় 55 থেকে 60 কিলোমিটার।

আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে এই ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ ক্ষতি করতে পারে পূর্ব মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ 24 পরগনায়। ‌ এছাড়াও এনডিআর‌এফ এবং এসডিআর‌এফ কে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ত্রাণ শিবির গুলিকে তৈরি রাখা হয়েছে।পূর্ব মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ 24 পরগনায় যথেষ্ট সর্তকতা জারি করেছে রাজ্য প্রশাসন।আগামী শনিবার এবং রবিবার ঝোড়ো হাওয়ার সাথে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে উপকূল সংলগ্ন জেলাগুলিতে।এছাড়াও আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে কলকাতাসহ দক্ষিণবঙ্গের বেশকিছু জেলায় বৃষ্টি এবং উপকূল ও সংলগ্ন জেলাগুলিতে ঝোড়ো হাওয়ার সাথে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button